বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এই গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “স্পর্শকাতর বিষয়ে যথাযথভাবে যাচাইপূর্বক বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ পরিবেশনের জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।”

প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক, অনলাইন সংবাদপত্রের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও রাজনৈতিক ব্যক্তি, ব্যবসায়ী, সরকারি কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে বিভিন্ন ‘বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ’ দেখে এই গণবিজ্ঞপ্তি এসেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের।

এতে বলা হয়, “যার ফলে জনশৃঙ্খলার অবনতি, ব্যক্তিগত সুনাম ক্ষুণ্ন ও সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টিসহ জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে।”

জনশৃঙ্খলার অবনতি ও সামাজিক অস্থিরতা রোধে গণমাধ্যমের ‘ইতিবাচক ভূমিকার’ প্রতি সরকার যথেষ্ট আস্থাশীল বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কিছু নামমাত্র অনলাইন পোর্টাল মানুষের চরিত্র হনন করে আজেবাজে নিউজ করছে, আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সেইসব খবর ছড়াচ্ছে। এসব বিষয় রোধ করার জন্যই এই গণবিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here