সম্পাদকীয়ঃ  সারা বিশ্ব যখন ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক রাজনীতির মেরুকরণে ব্যস্ত তখন বাংলার মাটিতে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এমন কিছু অরাজনৈতিক অসাম্প্রদায়িক সামাজিক সংগঠনের যাত্রা শুরু হয়েছে যা  আশাজাগানিয়া সংবাদ হিসেবে প্রতীয়মাণ হয়।দুটি খন্ড সংবাদ উল্লেখযোগ্য।

১।পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলা সংবাদদাতা অসীম রায়  বাদকুল্লা উপজেলার “উন্মুক্ত” নামের একটি অসাম্প্রদায়িক সামাজিক এবং স্বেচ্ছাসেবী  সংগঠনের সাম্প্রতিক কর্মকান্ডের ছবি ও সংবাদ পাঠিয়েছে (ছবিতে বামের তিনটি ছবি) যেখানে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে  সংগঠনের সদস্যরা পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে সুবিধা বঞ্চিত এবং এতিমদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে।ধর্মীয় বিদ্বেষ যেখানে পাল্লা ভারী সেখানে এরূপ কর্মকাণ্ড প্রশংসার  যোগ্য।

২।গত ২রা জুন বাংলাদেশের অনুন্নত জেলা কুড়িগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল  ছিনাই এ  “আমরা আনিব রাঙা প্রভাত” স্লোগান নিয়ে “ঊষা” নামের একটি সংগঠনের যাত্রা শুরু হয়।শুধু মাত্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা মিলে (ছবিতে ডান পাশে) সামাজিক উন্নয়নের স্বার্থে  অসাম্প্রদায়িক এই সংগঠন গড়ে তোলে।সাংগঠনিক গঠনতন্ত্র না থাকলেও সরল মনের উদ্যোক্তারা সাংগঠনিক কর্মকান্ড বেগবান করতে একটি আহ্বায়ক কমিটি করে যেখানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক সাবেক জাবি ছাত্র মাখন চন্দ্র রায় কে উপদেষ্টা আহ্বায়ক করা হয়। আরও দশসদস্যের কার্যকরী সদস্য নিয়ে কার্যকরী পরিষদ গঠন করা হয়।কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের দর্শন বিভাগীয় প্রধান সাবেক ঢাবি ছাত্র চিন্ময় রায় পলাশ সহ দুজনকে উপদেষ্টা পরিষদে রাখা হয়।

উপরের ঘটনা গুলো হয়ত সংবাদ হিসেবে পরিবেশনের যোগ্য নয় কিন্তু এগুলো আশার আলো!বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে ইউরোপ-আমেরিকা-এশিয়ায় যেখানে ধর্মের নাম ভাঙিয়ে চলছে রাজনৈতিক  ফায়দালুটতরাজ সেখানে প্রত্যন্ত অঞ্চলের এরূপ “আশার আলো”র বহুলচর্চা আধুনিক যুগের তথাকথিত সভ্যদের আলোর পথে আনতে পারে।

সুমিত সেন

প্রধান সম্পাদক

independent71.com

sumitsen.cf